ব্রেকিং নিউজ :
Home » ভিন্ন খবর » বিমানবন্দরে ফেলে যাওয়া সেই শিশুর ‘অভিভাবকত্ব’ নির্ধারণ হবে আজ

বিমানবন্দরে ফেলে যাওয়া সেই শিশুর ‘অভিভাবকত্ব’ নির্ধারণ হবে আজ

প্রাইম নিউজ ডেস্ক : হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে রেখে যাওয়া শিশু ফাতেমার ‘অভিভাবকত্ব’ নির্ধারণ হবে আজ।

বুধবার ঢাকার শিশু আদালতের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান আট দম্পতির আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শিশুটির  ‘বৈধ অভিভাকত্ব’ নির্ধারণ করবেন।

শিশুটির ‘বাবা-মা’ হিসেবে তাকে পাওয়ার জন্য আবেদনকারী হলেন- ব্যবসায়ী আশিক ওয়াহিদ-শাহনাজ, পুলিশ কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ-নিঝুম আক্তার, সেনাবাহিনীর তথ্যপ্রযুক্তি ফার্মের কর্মকর্তা মাজহারুল-লায়লা নুর, ব্যবসায়ী আলমগীর-অ্যাডভোকেট সেলিনা আক্তার, ব্যবসায়ী জামাল-শ্যামলী আক্তার, ব্যবসায়ী গোলাম সরওয়ার-দুলশাদ বেগম বিথি, ব্যবসায়ী শামসুল আলম চৌধুরী-শামিমা আক্তার চৌধুরী ও বিমানের কর্মকর্তা আ ক ম আতিকুর রহমান-মনালিসা দম্পতি।
আবেদনকারী এই আট দম্পতি থেকে আজ শিশুটির বাবা-মা বাছাই করবেন আদালত।
গত ৮ জুলাই জর্ডান থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে দেশে ফেরার পর শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে শিশু ফাতেমাকে রেখে যান জনৈক নারী। তিনি জর্ডানে গৃহকর্মী হিসেবে গিয়েছিলেন।

ওইদিন একই বিমানে পাশাপাশি আসনে জর্ডান থেকে ফেরেন জয়দেবপুরের স্বপ্না বেগম। তিনিও জর্ডানে গৃহকর্মী হিসেবে গিয়েছিলেন। তবে স্বপ্নার সঙ্গে বিমানেই ওই অজ্ঞাত নারীর পরিচয় হয়।

স্বপ্না বেগম বলেন, ফ্লাইট অবতরণের পর সব আনুষ্ঠানিকতা শেষে কাস্টমস থেকে মালপত্র নিয়ে বের হয়ে বিমানবন্দরের ক্যানওপি পার্কিং এলাকায় স্বজনের জন্য অপেক্ষা করছিলেন তিনি। ঠিক এমন সময় বিমানে তার পাশের আসনে পরিচয় হওয়া ওই নারী তার কোলে থাকা শিশুটিকে আমার কোলে দিয়ে বলেন, আপা আমার শিশুটাকে একটু রাখেন। ভেতরে মালপত্র রয়েছে, নিয়ে আসছি।

তিনি বলেন, বিমানে তার সঙ্গে কথা হওয়ায় সরল বিশ্বাসে শিশুটিকে কোলে তুলে নেন স্বপ্না। কিন্তু দীর্ঘ সময় অপেক্ষার পরও সেই নারী আর ফেরেননি।

পরে বিমানবন্দরের আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) সদস্যদের কাছে ঘটনাটি জানালে তারা শিশুসহ স্বপ্নাকে বিমানবন্দর থানায় পাঠায়। ওইদিনই বিমানবন্দর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়। এরপর শিশুটিকে রাজধানীর তেজগাঁওয়ের ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে পাঠানো হয়।

এ ঘটনায় গত ২৫ জুলাই ঢাকার শিশু আদালতের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান ফাতেমার প্রকৃত বাবা-মাকে খুঁজে বের করার নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে ৯ আগস্টের মধ্যে শিশুটির প্রকৃত বাবা-মাকে খুঁজে বের করার দিন নির্ধারণ করেন।

এছাড়া আদেশে প্রকৃত বাবা-মাকে খুঁজে না পাওয়া গেলে শিশুটিকে নিতে আগ্রহী কোনো দম্পতিকে বাছাই করে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেয়ার কথা জানানো হয়।

এরপর ৯ আগস্ট শিশু ফাতেমার প্রকৃত বাবা-মাকে খুঁজে পায়নি উল্লেখ করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা বিমানবন্দর থানার উপ-পরিদর্শক আবু সাঈদ।

প্রতিবেদনে বলা হয়, আদালতের নির্দেশে বিমানবন্দরের ওই দিনের ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়। এতে শিশুটির প্রকৃত বাবা-মাকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। শিশুটির বাবা-মা দাবি করে কেউও লিগ্যাল নোটিশও দেয়নি। এছাড়া শিশুটি হারিয়ে গেছে মর্মে বিমানবন্দর থানায় কেউও জিডিও করেনি।

ওইদিন শিশুটির অভিভাবকত্ব গ্রহণে আট দম্পতি আদালতে আবেদন করেন। তবে এদিন আদালত শিশু ফাতেমার ‘বৈধ অভিভাবকত্ব’ নির্ধারণে সময় পিছিয়ে আজ ১৬ আগস্ট দিন ধার্য করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.